আবরার ইফাজ

রিসার্চ অফিসার, ডিসমিসল্যাব
ড. ইউনূসকে নিয়ে ফেসবুকে ভুয়া ফটোকার্ড
This article is more than 2 months old

ড. ইউনূসকে নিয়ে ফেসবুকে ভুয়া ফটোকার্ড

আবরার ইফাজ
রিসার্চ অফিসার, ডিসমিসল্যাব

শান্তিতে নোবেল বিজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে নিয়ে সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকে একটি ফটোকার্ড ছড়াতে দেখা গেছে। কার্ডটিতে ভারতীয় ধনকুবের মুকেশ আম্বানির পুত্রের বিয়েতে ড. ইউনূস ক্ষুদ্রঋণ বিতরণ করবেন বলে প্রচারিত হয়। কালের কণ্ঠ পত্রিকার নাম ব্যবহার করে ছড়ানো হয় কার্ডটি। তবে পত্রিকাটির সঙ্গে যোগাযোগ করে ফটোকার্ডটি ভুয়া বলে নিশ্চিত হয়েছে ডিসমিসল্যাব। 

কালের কণ্ঠ পত্রিকার লোগো ব্যবহার করে ফটোকার্ডটিতে লেখা হয়, “মুকেশ আম্বানি পুত্রের বিয়েতে অতিথিদের ২% সুদে ক্ষুদ্র ঋণ বিতরণ করবেন ড. ইউনূস”। একাধিক ফেসবুক ব্যবহারকারীর প্রোফাইল থেকে এই ফটোকার্ডটি একই ক্যাপশন ব্যবহার করে পোস্ট হতে দেখা যায় (,,,), যা গত রোববার ডিসমিসল্যাবের নজরে আসে। 

সংবাদটির সত্যতা যাচাই করতে কালের কণ্ঠের ফেসবুক ও ওয়েবসাইটে অনুসন্ধান করা হয়। তবে তাদের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে এ ধরনের কোনো পোস্ট পাওয়া যায়নি। গুগল সার্চে এই সংক্রান্ত বিভিন্ন কি-ওয়ার্ড ব্যবহার করেও এই ধরনের কোনো সংবাদ সামনে আসেনি।

কালের কণ্ঠের অনলাইন ইন-চার্জ সাকিব সিকান্দারের কাছে এই বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে তিনি ডিসমিসল্যাবকে জানান “ফটোকার্ডটি ভুয়া। আমরা ইতিমধ্যেই এই ব্যাপারে সতর্কবার্তা প্রকাশ করেছি”। 

ভারতের ধনাঢ্য ব্যবসায়ী মুকেশ আম্বানি ও নীতা আম্বানির ছোট ছেলে অনন্ত আম্বানির বিয়ের অনুষ্ঠানে বিখ্যাত সেলিব্রিটিদের আগমন নিয়ে সামাজিক গণমাধ্যমগুলোতে বেশ আলোচনার মাঝে এই ভুয়া ফটোকার্ডটি ছড়িয়ে পড়লো।

ড. ইউনূসকে নিয়ে ২০২৩ সালেও একাধিক ভুয়া সংবাদ ও উক্তি ছড়ানোর ঘটনা ঘটে (,)

২০১৬ সালের ৫ আগস্ট তারিখে রিও অলিম্পিকের ভেন্যুতে তোলা আম্বানি পরিবার ও ড. ইউনূসের মধ্যকার একটি ছবি রিলায়েন্স ফাউন্ডেশনের এক্স (পূর্ববর্তী টুইটার) প্রোফাইল থেকে পোস্ট করা হয়। একই বছরের ১৪ ডিসেম্বর রিলায়েন্স ফাউন্ডেশনের ইউটিউব চ্যানেল থেকে একটি ভিডিও প্রকাশ করা হয় যেখানে নোবেল বিজয়ের ১০ বছর পূর্তি উপলক্ষে ড. ইউনূসকে অভিনন্দন ও শুভকামনা জানান প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারপার্সন নীতা আম্বানি।

আরো কিছু লেখা