তামারা ইয়াসমীন তমা

রিসার্চার, ডিসমিসল্যাব
শ্রীলঙ্কাই একমাত্র অমুসলিম দেশ নয় যারা রেডিওতে পাঁচবার আজান প্রচার করে
This article is more than 1 month old

শ্রীলঙ্কাই একমাত্র অমুসলিম দেশ নয় যারা রেডিওতে পাঁচবার আজান প্রচার করে

তামারা ইয়াসমীন তমা
রিসার্চার, ডিসমিসল্যাব

শ্রীলঙ্কা বিশ্বের একমাত্র অমুসলিম দেশ যেখানে টেলিভিশন ও রেডিওতে ৫ ওয়াক্ত আজান সম্প্রচার করা হয়- এমন একটি দাবি সামাজিক মাধ্যমে বিগত কয়েক বছর ধরে অনেকেই প্রচার করে আসছেন। তবে, যাচাইয়ে দেখা যায় তথ্যটি বিভ্রান্তিকর। শ্রীলঙ্কার জাতীয় একটি রেডিওতে দৈনিক পাঁচবার আজান প্রচারিত হলেও কোনো টেলিভিশনে দৈনিক পাঁচ বার আজান প্রচারিত হয় না। এছাড়া, শ্রীলঙ্কাই একমাত্র মুসলিম দেশ নয়, বিশ্বের আরো কিছু অমুসলিম দেশে রেডিওতে দিনে ৫ বার আজান প্রচারের তথ্য মেলে। 

“শ্রীলংকা হচ্ছে একমাত্র অমুসলিম দেশ যেখানে টেলিভিশনে এবং রেডিওতে ৫ ওয়াক্ত আজান সম্প্রচার করা হয়ে থাকে”- এমন একটি দাবি ২০১১ সাল থেকে সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকে প্রচারিত হয়ে আসছে। দীর্ঘ ১৩ বছর ধরে ঘুরেফিরে দাবিটি ফেসবুকে আসছে। সর্বশেষ চলতি বছরও একাধিকবার (, , , ) দাবিটি ফেসবুকে চোখে পড়ে। এছাড়া মূলধারার গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে এমন তথ্য উল্লেখ করা হয়।

বছর হিসেবে এই দাবির টাইমলাইন:

শ্রীলঙ্কায় শুধু রেডিওতে আজান ধ্বনিত হয়, টেলিভিশনে না

শ্রীলঙ্কায় আজান সম্প্রচার নিয়ে যাচাইয়ে ওই দেশের দুইটি গণমাধ্যমে ‘শ্রীলঙ্কা একমাত্র অমুসলিম দেশ যা আজান সম্প্রচার করে- এএইচএম আজওয়ার, এমপি” শিরোনামের পৃথক (, ) প্রতিবেদন পাওয়া যায়। প্রতিবেদন অনুসারে, ২০১১ সালে শ্রীলঙ্কায় হোটেল রামাদায় অনুষ্ঠিত ওয়ার্ল্ড মুসলিম কনগ্রেস কনফারেন্সের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে দেশটির তৎকালীন পার্লামেন্ট সদস্য আলহাজ্ব এ এইচ এম আজওয়ার বলেন, “শ্রীলঙ্কা একমাত্র অমুসলিম দেশ যেখানে প্রতিদিন দেশের জাতীয় রেডিওতে নামাজ পড়ার আহ্বান করতে আজান সম্প্রচারের অনুমতি রয়েছে।” শ্রীলঙ্কার টেলিভিশন চ্যানেলে আজান সম্প্রচার হয়ে থাকে, এই সংবাদ স্থানীয় প্রতিবেদনের কোথাও পাওয়া যায়নি। 

যাচাইয়ে দেখা যায়, হোটেল রামাদায় ওয়ার্ল্ড মুসলিম কংগ্রেস কনফারেন্স অনুষ্ঠিত হয় ২০১১ সালের ১৩ ও ১৪ নভেম্বর। পরদিন ১৫ নভেম্বর শ্রীলঙ্কার জাতীয় দৈনিক ডেইলি নিউজ এ নিয়ে প্রতিবেদন ছাপে। সেইলনমুসলিম একই প্রতিবেদন প্রকাশ করে ৫ ডিসেম্বর, ২০১১। অন্যদিকে, সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকে দাবিটি নিয়ে পোস্ট পাওয়া যায় ২০১১ সালের নভেম্বর থেকে (, )। অর্থাৎ, এমপি আজওয়ার ওয়ার্ল্ড মুসলিম কংগ্রেস কনফারেন্সে বক্তব্যটি রাখার পর থেকেই এটি ছড়ানো শুরু হয়। 

শ্রীলঙ্কার ফ্যাক্টচেকিং সংস্থা হ্যাশট্যাগ জেনারেশনের ফ্যাক্টচেকার ও সোশ্যাল মিডিয়া অ্যানালিস্ট সাবির মোহাম্মদ ডিসমিসল্যাবকে জানান, শ্রীলঙ্কার রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন রেডিও সম্প্রচারকারী শ্রীলঙ্কা ব্রডকাস্টিং করপোরেশনের  (এসএলবিসি)-র অধীনে একাধিক রেডিও স্টেশন পরিচালিত হয়। এর মধ্যে শুধু এসএলবিসি তামিল ন্যাশনাল সার্ভিস নামের বিশেষায়িত একটি চ্যানেলে  দৈনিক পাঁচবার আজান সম্প্রচারিত হয়। এফএম ১০২.১ এবং এফএম  ১০২.৩ ফ্রিকোয়েন্সিতে তামিল ভাষার চ্যানেলটি শোনা যায়। এর মধ্যে সকাল ৮টা থেকে সাড়ে ১০টা এবং রাত ৮ থেকে ৯টা এই দুই বার বেল্ট পরিবর্তিত হয়ে এসএলবিসি মুসলিম সার্ভিস হিসেবে প্রচারিত হয়। এই সময় বেতারটিতে বিশেষায়িত ধর্মীয় অনুষ্ঠান ও আলোচনা প্রচারিত হয়ে থাকে। বাকি সময় অন্যান্য সাধারণ অনুষ্ঠান সম্প্রচারের পাশাপাশি যখনই নামাজের সময় হয়, পাঁচবার আজান সম্প্রচারিত হয়। ইউটিউবেও চ্যানেলটি থেকে প্রচারিত আজানের রেকর্ডিং পাওয়া যায়। তবে কোথাও কোনো অনুষ্ঠানসূচি পাওয়া যায়নি।

শ্রীলঙ্কার এই ফ্যাক্টচেকারের মতে, তাঁর দেশের একটি রেডিওতে আজান সম্প্রচারিত হলেও কোনো জাতীয় টেলিভিশনে আজান সম্প্রচারিত হয় এমনটি জানেন না তিনি। ডিসমিসল্যাবের যাচাইয়ে শ্রীলঙ্কার জাতীয় টেলিভিশন রাষ্ট্রচালিত শ্রীলঙ্কা রুপাবাহিনী (টিভি) করপোরেশন (এসএলআরসি)-এর ওয়েবসাইট ঘুরেও আজান সম্প্রচারের কোনো তথ্য মিলে না। এসএলআরসির আওতাধীন তিনটি টিভি চ্যানেল রুপাবাহিনী, নেত্রাটিভিচ্যানেল আই-এর অনুষ্ঠানসূচিতে বিভিন্ন ধর্মীয় অনুষ্ঠান সম্প্রচারের উল্লেখ থাকলেও আজান প্রচারবিষয়ক কিছু পাওয়া যায়নি।

শ্রীলঙ্কাই একমাত্র অমুসলিম দেশ যারা রেডিওতে পাঁচ ওয়াক্ত আজান সম্প্রচার করে?

শ্রীলঙ্কা বিশ্বের একমাত্র অমুসলিম দেশ নয় যারা জাতীয় রেডিওতে আজান সম্প্রচার করে থাকে। যাচাইয়ে দেখা যায় সিঙ্গাপুরের ওয়ারনা ৯৪.২ এফএম রেডিও চ্যানেলটি দৈনিক পাঁচবার আজান সম্প্রচার করে থাকে। ওয়ারনা  ৯৪.২ এফএমে সম্প্রচারিত আজানের রেকর্ড পাওয়া যায় ইউটিউবে

ওয়ারনা ৯৪.২ এফএম চ্যানেলটি সিঙ্গাপুরের বৃহত্তম রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন মিডিয়া প্রতিষ্ঠান মিডিয়াকরপের নিয়ন্ত্রণাধীন একটি চ্যানেল। চ্যানেলটি মালয় ভাষায় প্রচারিত। ১৯৭৮ সাল থেকেই ওয়ারনা ৯৪.২ এফএম নিয়মিত আজান সম্প্রচার করে আসছে।

এর বাইরেও বিশ্বের বিভিন্ন দেশে জাতীয় পর্যায়ে না হলেও স্থানীয়ভাবে মুসলিমদের জন্য পরিচালিত রেডিও স্টেশনে আজান প্রচারিত হয়। এমনই একটি লোকাল রেডিও চ্যানেল হলো সিডনির ভয়েজ অব ইসলাম ৮৭.৬ এফএম। চ্যানেলটি আজান প্রচারের সূচিও তাদের ওয়েবসাইটে দিয়ে থাকে।

২০১৯ সালে ক্রাইস্টচার্চের হামলার পর নিউজিল্যান্ডের জাতীয় সম্প্রচার মাধ্যম টিভি এনজেড এবং আরএনজেডে শুক্রবার জুমার নামাজের আজান সম্প্রচারের ঘোষণা দেন দেশটির তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আরডার্ন। 

এছাড়া করোনা মহামারির সময় যুক্তরাজ্যের ১৪টি স্থানীয় চ্যানেলে শুক্রবার জুমার আজান সম্প্রচারের সিদ্ধান্ত নেয় বিবিসি রেডিও।

আরো কিছু লেখা