ফাতেমা তাবাসুম

ফেলো, ডিসমিসল্যাব
ফের ডিপফেক ভিডিওর শিকার ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা

ফের ডিপফেক ভিডিওর শিকার ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা

ফাতেমা তাবাসুম

ফেলো, ডিসমিসল্যাব

সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকের একাধিক পেজ ও আইডি থেকে একটি ভিডিও শেয়ার করে দাবি করা হচ্ছে, ভিডিওটিতে বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সহ-সম্পাদক ও সাবেক সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানাকে দেখা যাচ্ছে। ভিডিওর শিরোনামে বলা হয়, “টিকটকের ভিডিও বানাতে পূর্বাচল এক্সপ্রেস ওয়েতে রুমিন ফারহানা।” যাচাইয়ে ডিসমিসল্যাব দেখেছে, ভিডিওটি এই সাবেক সংসদ সদস্যের নয়। এটি একটি ডিপফেক ভিডিও, যা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহার করে অপর একজন অভিনেত্রীর ভিডিও সম্পাদনা করে বানানো হয়েছে। 

সম্প্রতি একাধিক ফেসবুক প্রোফাইল (, , ) ও পেজ (, , ) থেকে রুমিন ফারহানা দাবিতে এই ভিডিওটি শেয়ার করা হয়। ২১ মে বাংলা নিউজ পয়েন্ট (Bangla News Point) নামের একটি ফেসবুক পেজ থেকে শেয়ারকৃত এই ভিডিওতে সরাসরি দাবি করা হয়, পূর্বাচলের এক্সপ্রেসওয়েতে দাঁড়িয়ে রুমিন ফারহানা টিকটক ভিডিও বানাচ্ছেন। ভিডিওটিতে ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক হিসেবে “প্রেমে পড়ে যাই” শীর্ষক একটি বাংলা গান শোনা যায়। ৩৫ লাখেরও বেশি সংখ্যক বার এই ফেসবুক ভিডিওটি দেখা হয়েছে। আসল ভিডিওটি খুঁজে পাওয়া যায় প্রনোমি নাফি (Pronome) নামের এক সঙ্গীত শিল্পীর ফেসবুক পেজে। মূলত নিজের গাওয়া “প্রেমে পড়ে যাই” মিউজিক ভিডিওকে প্রমোট করতেই প্রনোমি তার নিজের অফিশিয়াল ফেসবুক পেজে রিলটি গত ১ মে শেয়ার করেন।

তবে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহার করে প্রনোমির মুখে রুমিন ফারহানার চেহারা বসিয়ে দেওয়া হয়েছে। এ ধরনের ভিডিও ‘ডিপফেক ভিডিও’ নামে পরিচিত, যা খুব সূক্ষ্মভাবে করা হয় বলে অনেক সময় শনাক্ত করাও কঠিন হয়ে পড়ে। 

যাচাইয়ে দেখা যায়, এই প্রতিবেদনটি লেখার সময় পর্যন্ত প্রনোমি নাফির প্রমোশোনাল ফেসবুক রিলটিতে ‘এনগেজমেন্ট’ বা দর্শক প্রতিক্রিয়া সাড়ে ১৭ হাজারের বেশি। অন্যদিকে রুমিন ফারহানার নাম করে ছাড়া ডিপফেক ভিডিওটিতে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন ৩৩ হাজারের বেশি ব্যবহারকারী অর্থাৎ প্রায় দ্বিগুণের কাছাকাছি।

এছাড়া যাচাইয়ে বাংলা নিউজ পয়েন্ট (Bangla News Point)– এ গত ২৯ এপ্রিল রুমিন ফারহানার আরও একটি ডিপফেক ভিডিও খুঁজে পাওয়া যায়। ভারতীয় অভিনেত্রী মাধুরী দীক্ষিত– এর একটি নাচের ভিডিওকে এআই ব্যবহার করে সম্পাদিত করে রুমিন ফারহানার এই ডিপফেক ভিডিওটি বানানো হয়েছিল।

এর আগে একই পেজে (বাংলা নিউজ পয়েন্ট) ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানার একটি বক্তব্য বিকৃত করে অন্য একটি ভিডিও প্রচার করা হয়েছিল। যা নিয়ে বিভিন্ন তথ্য যাচাইকারী প্রতিষ্ঠান প্রতিবেদন প্রকাশ করে। এছাড়াও ২০২৩ সালের ১৮ মে এই একই পেজ থেকে “২০১৩ সালে তিনি যখন ছাত্রী” দাবিতে ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানার আরও একটি ডিপফেক ভিডিও সামাজিক যোগাযোগা মাধ্যমে পোস্ট করা হয়েছিল। যা নিয়েও বিভিন্ন সময় ফ্যাক্টচেক প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

কিওয়ার্ড সার্চে বাংলা নিউজ পয়েন্ট (Bangla News Point) ফেসবুক পেজটিতে শুধু ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানাকে নিয়েই এখন পর্যন্ত মোট পাঁচটি অপতথ্য প্রচার করে পোস্ট পাওয়া যায়। যার মাঝে তিনটি ডিপফেক ভিডিও (, , ) ও একটি পুরোনো বক্তব্যের ভিডিও বিকৃত করে বানানো রিল এবং একটি গুজব ছড়ানো পোস্ট খুঁজে পাওয়া যায়। এগুলোর মাঝে ২০২৩ সালে ছড়ানো ডিপফেক ও গুজবসহ এখন পর্যন্ত তিনটি (, , ) পোস্টকে ফেসবুক ফ্ল্যাগ করলেও মাধুরী দীক্ষিতের নাচের ভিডিও ব্যবহার করে বানানো রুমিন ফারহানার ডিপফেক ভিডিওটিকে ফেসবুক এখনো ফ্ল্যাগ করতে পারেনি।

রুমিন ফারহানাকে নিয়ে এর আগেও একাধিকবার ডিপফেক কিংবা বিকৃত ভিডিওর প্রচার হতে দেখা যায়, যা নিয়ে ইতিমধ্যে বেশ কিছু ফ্যাক্টচেক প্রতিবেদন (, , , ) প্রকাশিত হয়েছে।

আরো কিছু লেখা