তামারা ইয়াসমীন তমা

রিসার্চার, ডিসমিসল্যাব
ভুয়া বক্তব্য ও অস্তিত্বহীন কমিটির বরাতে ছড়াল বিএনপির কথিত জরিপের খবর
This article is more than 2 months old

ভুয়া বক্তব্য ও অস্তিত্বহীন কমিটির বরাতে ছড়াল বিএনপির কথিত জরিপের খবর

তামারা ইয়াসমীন তমা
রিসার্চার, ডিসমিসল্যাব

সম্প্রতি “তারেক রহমানের নেতৃত্ব চায় না ৭২ শতাংশ নেতাকর্মী: জরিপ” এমন শিরোনামে বেশ কয়েকটি নিউজ পোর্টালে সংবাদ প্রচারিত হয়, যা সামাজিক মাধ্যমেও ব্যাপকভাবে ছড়াতে দেখা যায়। বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) একজন নেতা এবং একটি ‘ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং’ কমিটির বরাত দিয়ে জরিপের খবরটি প্রকাশ করা হলেও, দলটি বলছে তাদের এমন কোনো কমিটি নেই এবং সেই নেতাও তার নামে ছড়ানো বক্তব্যটিকে “কাল্পনিক” ও “মিথ্যাচার” বলে অভিহিত করেছেন।

গত ১২ ফেব্রুয়ারি ডেইলি নিউজ নামের ফেসবুক পেইজে প্রথমবারের মতো ফটোকার্ড আকারে জরিপটি প্রকাশিত হতে দেখা যায়। পরবর্তীতে ১৩ ফেব্রুয়ারি বাংলা নিউজ ব্যাংকময়মনসিংহের আলো নামের সংবাদপত্র দুটিতে তা প্রতিবেদন আকারে প্রকাশিত হয়। হুবহু একই প্রতিবেদন ১৫ ফেব্রুয়ারিও বেশ কয়েকটি পোর্টালে আসে (, , , , , , )। বাংলা নিউজ ব্যাংকের ইউটিউব চ্যানেলেও প্রতিবেদনটির ভিডিও সংস্করণ পাওয়া যায়।

ফেসবুকেও লিখিত প্রতিবেদন (, , ), ভিডিও (, ) ও ফটোকার্ড (, , , , , , , , ) আকারে বার্তাটি ছড়িয়েছে। বিভিন্ন পেজের ফটোকার্ডে হুবহু একই ক্যাপশন ব্যবহার করা হয়েছে, যার ভাষা ছিল: “বিএনপির ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং কমিটির জরিপ তারেক রহমানের নেতৃত্ব চায় না দলের ৭২ শতাংশ নেতাকর্মী”।

প্রতিবেদনে বলা হয়, “… এই নড়বড়ে অবস্থার জন্য দায়ী ‘সঠিক নেতৃত্ব’- যা উঠে এসেছে বিএনপির ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং কমিটির করা জরিপে। জরিপে দেখা যায়, তারেক রহমানের নেতৃত্ব চায় না দলের ৭২ শতাংশ নেতাকর্মী। ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং কমিটির জরিপে এমন তথ্য উঠে আসায় চক্ষু ছানাবড়া তারেকপন্থী নেতাকর্মীদের।”

প্রতিবেদনে দাবি করা হয়, “জরিপ বিষয়ে ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং কমিটির অহ্বায়ক অনিন্দ্য ইসলাম অমিত বলেন, ‘বিএনপিকে সাংগঠনিকভাবে শক্তিশালী করা এবং আন্তর্জাতিক অঙ্গনে গ্রহণযোগ্যতা বৃদ্ধির তাগিদ থেকে দলের অভ্যন্তরীণ দুর্বলতা খুঁজে বের করতে এ জরিপ চালায় বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতারা। জরিপে তারেক রহমানের নেতৃত্বের দুর্বলতাই বেশি উঠে এসেছে।’”

বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির ভারপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক অনিন্দ্য ইসলাম অমিত ডিসমিসল্যাবকে জানান, দলটিতে কোনো ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং কমিটির অস্তিত্ব নেই। তিনি লিখিত বক্তব্যে বলেন, “জরিপ প্রতিবেদনের উদ্ধৃতি দিয়ে অনলাইন পোর্টালটিতে যা বলা হয়েছে, তার সাথে বাস্তবতার কোন মিল নেই। রিপোর্টে আমার নামোল্লেখ করে কাল্পনিক বক্তব্য জুড়ে দেয়া হয়েছে। আমি এই জঘন্য মিথ্যাচারের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।”

বিএনপি-র দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে এমন কোনো জরিপ আদৌ পরিচালিত হয়েছে কিনা এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপির মিডিয়া সেল সদস্য শায়রুল কবির খান জানান, “এরকম কোনো জরিপ হয়নি, এগুলো বানোয়াট ও ভুয়া”। তিনিও বলেন যে বিএনপির কোনো ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং কমিটি নেই।

এবিষয়ে দেশের উল্লেখযোগ্য পত্রিকা, প্রথম সারির অনলাইন সংবাদমাধ্যম বা টেলিভিশনেও কোনো খবর পাওয়া যায়নি। দৈনিক সমকালের বিএনপি বিট প্রতিবেদক কামরুল হাসান ডিসমিসল্যাবকে জানান, “এধরনের কোনো জরিপের তথ্য গণমাধ্যমের কাছে নেই”।

এর আগে বাংলা নিউজ ব্যাংক (, ) ও বাংলা নিউজ পয়েন্টের (, , , ) ফেসবুক পেজ থেকে প্রচারিত একাধিক ভুয়া তথ্য নিয়ে ফ্যাক্টচেক প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে। 

আরো কিছু লেখা