ফাতেমা তাবাসুম

ফেলো, ডিসমিসল্যাব
ভিডিওটি দুবাইয়ের নৈশক্লাবের নয়

ভিডিওটি দুবাইয়ের নৈশক্লাবের নয়

ফাতেমা তাবাসুম

ফেলো, ডিসমিসল্যাব

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে সম্প্রতি একটি ভিডিও রিলে দাবি করা হয়, এটি দুবাইয়ের এক নৈশক্লাবের দৃশ্য। যাচাইয়ে দেখা যায় ভিডিওটি তুরস্কের ইয়াজিদি জাতিগোষ্ঠীর এক অনুষ্ঠানের। কিন্তু ‘ধরলা টিভি-Dhorla TV’ নামের একটি ফেসবুক পেজ থেকে ভুল তথ্য ছড়ানো হয়। 

দুবাইয়ের নাইট ক্লাবে কি হয়” ক্যাপশনে গত ২০ মে ভিডিওটি পোস্ট করে ‘ধরলা টিভি’। ভিডিওর উপরে মোটা হরফে লেখা হয় ‘দুবাইয়ের নাইট ক্লাবে সারা রাত কী করে ধনকুবের শেখেরা‍!’ এতে দেখা যায় একটি স্থাপনার প্রবেশদ্বার দিয়ে খালি পায়ে বেরিয়ে আসছেন কয়েকজন তরুণী। এসময় ভিডিওতে বাংলা ভাষায় বলতে শোনা যায়, “দুবাইয়ের এই নাইট ক্লাব থেকে একে একে বেরিয়ে আসছে সুন্দরী তরুণীরা। দুবাইয়ের শেখেরা এই নাইট ক্লাবে টাকার বিনিময়ে সারারাইত আনন্দ-ফুর্তি করতে পারেন।”

ছড়িয়ে পড়া ভিডিওটির মূল উৎস খুঁজতে অনলাইনে রিভার্স ইমেজ সার্চ করে ডিসমিসল্যাব। উক্ত সার্চে একই ভিডিও সম্বলিত সবচেয়ে পুরোনো পোস্টটি পাওয়া যায় আরেক সামাজিক মাধ্যম টিকটকে। গত বছরের ১৫ অক্টোবর সেটি আপলোড করা হয়। যাচাইয়ে নিশ্চিত হওয়া যায় যে এটি তুরস্কের সিরনাক প্রদেশের মাগারা গ্রামে ইয়াজিদি সম্প্রদায়ের একটি ধর্মীয় পীঠস্থানের দৃশ্য। গত বছর এখানে ইয়াজিদিদের ঐতিহ্যবাহী এক অনুষ্ঠান উদযাপিত হয়। ধর্মীয় আচারের অংশ হিসেবে একটি মঠে প্রবেশ করে ভিডিওতে দৃশ্যমান তরুণীরা বেরিয়ে আসছিলেন। তারা সবাই ইয়াজিদি নারীদের ঐতিহ্যবাহী সাদা পোশাকে ছিলেন।

‘ধরলা টিভি’তে এরকম আরও রিল

‘ধরলা টিভি-Dhorla TV’ পেজটিতে আরও একাধিক রিলের সন্ধান মেলে যেগুলোর কোনো সত্যতা পাওয়া যায়নি। গত ৫ মে এই পেজে পোস্ট করা ‌একটি রিলে দেখা যায় এক ব্যক্তি ভারী তুষারপাতের মধ্যে ধ্যান করছেন। রিলের ক্যাপশন “ঈশ্বরের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে ধ্যান।” ভিডিওতে একজনকে বলতে শোনা যায়, “ইউরোপীয় এই বাসিন্দা মাইনাস সেভেন ডিগ্রী সেলসিয়াস তাপমাত্রায় ঈশ্বরের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে ধ্যান করছেন।” যাচাইয়ে জানা যায়,  ভিডিওতে দৃশ্যমান ব্যক্তিটি যোগী সত্যেন্দ্র নাথ। তিনি ভারতের হিমাচল প্রদেশের সন্যাসী। টাইমস অব ইন্ডিয়া জানায়, সত্যেন্দ্র নাথ গত ফেব্রুয়ারি মাসে ভারতের হিমাচল প্রদেশের সেরাজ উপত্যকায় এক মাসব্যাপী ভ্রমণে ছিলেন। তখন তিনি প্রতিকূল আবহাওয়ায় ধ্যানে মগ্ন হন।

এছাড়া ধরলা টিভি গত ১৫ মে একটি রিল শেয়ার দিয়ে দাবি করে, ভোক্তাকে প্রতারণার অভিযোগে অভিযুক্ত ব্যবসায়ী রোবাইয়াত ফাতেমা তনি লাইভে এসে কান্না করছেন। কান্নার দৃশ্যটি গত বছরের ২০ সেপ্টেম্বরের। যা নিয়ে একটি ফ্যাক্টচেক প্রতিবেদনও হয়েছে।

ধরলা টিভি পেজে এগারো হাজারের বেশি লাইক এবং আড়াই লাখের বেশি ফলোয়ার রয়েছে। পেজটির তথ্য ঘাটলে দেখা যায় এটি চালাচ্ছেন দুজন বাংলাদেশি। পেজের বায়োতে ফলোয়ারদের উদ্দেশ্যে লেখা, “সমসাময়ীক নিউজ কন্টেন্ট পেজ।” চলতি মে মাসেই পেজটি থেকে “মসজিদে বয়ান করছে যুবতী” শীর্ষক শিরোনামে একটি ভুয়া ভিডিও ফেসবুকে ছড়ানোর পর তা নিয়ে ফ্যাক্টচেক প্রতিবেদন প্রকাশ পেয়েছিল।

আরো কিছু লেখা