স্টিভ সালগ্রা রেমা

ফেলো, ডিসমিসল্যাব
নৌকায় চড়ে ফিলিস্তিনে যুদ্ধ করতে যাচ্ছে- ভাইরাল ভিডিওৱ দাবিটি সত্য নয়
This article is more than 1 month old

নৌকায় চড়ে ফিলিস্তিনে যুদ্ধ করতে যাচ্ছে- ভাইরাল ভিডিওৱ দাবিটি সত্য নয়

স্টিভ সালগ্রা রেমা

ফেলো, ডিসমিসল্যাব

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে সম্প্রতি ছড়িয়ে পড়া একটি ভিডিও রিলে দেখা যায়, ফিলিস্তিনি পতাকা উড়িয়ে এগিয়ে চলেছে নৌকার বহর। ভিডিওর ক্যাপশনে দাবি করা হয়, ইসরায়েলের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে নৌকায় করে ফিলিস্তিন যাচ্ছে বিভিন্ন দেশের সৈনিক। ডিসমিসল্যাব যাচাই করে দেখেছে, ফেসবুক পোস্টের দাবিটি সত্য নয়। ভিডিওটি মালয়েশিয়ার জেলেদের। গত বছর অক্টোবরে গাজায় ইসরায়েলি হামলা শুরুর পর তারা ফিলিস্তিনিদের প্রতি সমর্থন জানিয়ে নিজ জলসীমায় প্রতীকী এ শোভাযাত্রা বের করে।

গত ১৬ এপ্রিল ফেসবুকে একজন ব্যবহারকারী ১৯ সেকেন্ডের ভিডিও রিলটি পোস্ট করেন। ভিডিওর উপর বাংলায় লেখা: “এগুলো কোন নৌকা বাইচ না এগুলো হলো ইসরাইলের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে বিভিন্ন দেশের সৈনিকরা আসছে ফিলিস্তিনে। আলহামদুলিল্লাহ জয় হবেই।” এই প্রতিবেদন লেখার সময় পর্যন্ত ভিডিওটি ৫ লাখ ৬৭ হাজার জন দেখেছেন। রিঅ্যাকশন ছিল ৫৬ হাজার, এবং শেয়ার করা হয় প্রায় সাড়ে সাত হাজার বার। কমেন্ট পড়েছে প্রায় দুই হাজার।

ভিডিওটিতে ফিলিস্তিনের পতাকার পাশাপাশি মালয়েশিয়ার পতাকাও দেখা যায়। ডিসমিসল্যাব রিভার্স ইমেজ সার্চ করে ইন্দোনেশিয়ার সংবাদমাধ্যম সেরাম্বি নিউজ এর একটি প্রতিবেদন পেয়েছে। এই প্রতিবেদনে বলা হয়, সেরাম্বি নিউজ ভাইরাল ভিডিওটির উৎস যাচাই করেছে। তারা দেখেছে, সামাজিক মাধ্যম ইনস্টাগ্রামের একটি অ্যাকাউন্ট থেকে ২০২৩ সালের ২১ অক্টোবর ভিডিওটি পোস্ট করা হয়। 

ডিসমিসল্যাব ইনস্টাগ্রামের অ্যাকাউন্টটিতে ভিডিওটি সনাক্ত করতে সক্ষম হয়েছে। ভিডিওর ক্যাপশন ইন্দোনেশিয়ার ভাষায় লেখা। গুগলে অনুবাদ করে অর্থ পাওয়া যায়, ‘দেখতে মালয়েশিয়ান জেলেদের মত। এটা কি হতে পারে যে তারা সমুদ্রপথে গাজার দিকে যাচ্ছে? এমন হলে, এটি ইসরায়েলের ইহুদিবাদীদের হাতে নির্যাতিত মুসলমানদের রক্ষার জন্য তাদের সংগ্রাম।’

এই ভিডিওটির কমেন্ট সেকশনে একজন ব্যবহারকারী মন্তব্য করেন, “আমি মালয়েশিয়ান, এবং এটি মালয়েশিয়ার পূর্ব উপকূলের তেরেঙ্গানু রাজ্যের ঘটনা। এটি শুধু ফিলিস্তিনের সমর্থনে বের করা একটি ঐক্যবদ্ধ কর্মসূচী। ‘ড্রব্রিজ তেরেঙ্গানু’ লিখে অনুসন্ধান করলে আপনি তেরেঙ্গানুর নাবিকদের ভিডিওগুলি পাবেন।”

এ বিষয়ে বিস্তারিত জানতে মালয়েশিয়ার তথ্য যাচাইকারী প্রতিষ্ঠান মাইচেকের সম্পাদক সাকিনা মোহামেদের সঙ্গে যোগাযোগ করে ডিসমিসল্যাব। সাকিনা মোহামেদ জানান, ভিডিওতে তিনি মালয়েশিয়ার পূর্ব উপকূলবর্তী তেরেঙ্গানু রাজ্যের পতাকা সনাক্ত করতে সক্ষম হয়েছেন। তিনি সামাজিক মাধ্যম টিকটক থেকে কয়েকটি ভিডিও (,,) এবং মালয়েশিয় একটি পত্রিকায় তেরেঙ্গানুর নৌকা প্যারেডের একটি প্রতিবেদন ডিসমিসল্যাবকে পাঠান। দেখা যায়, ভিডিওগুলো ২০২৩ সালের অক্টোবর মাসে টিকটকে আপলোড করা হয়েছে এবং ক্যাপশনে ‘তেরেঙ্গানুতে ফিলিস্তিনের সমর্থনে নৌকা প্যারেড’ কথাটি যুক্ত করা আছে। সম্পাদক সাকিনার পাঠানো একই মাসে প্রকাশিত সে প্রতিবেদনেও শতাধিক নৌকার একটি শোভাযাত্রা উপভোগ করছেন স্থানীয় মানুষ, তাদের অনেকেরই হাতে ফিলিস্তিনি পতাকা।

ফিলিস্তিন ও ইসরায়েল যুদ্ধ নিয়ে এর আগেও বাংলাদেশে সামাজিক মাধ্যমে অপতথ্য ছড়িয়েছে। ডিসমিসল্যাবসহ বাংলাদেশের ফ্যাক্টচেক সংস্থা রিউমর স্ক্যানার ও ফ্যাক্টওয়াচ এসব ছবি, ভিডিও বা পোস্ট যাচাই করে দেখিয়েছে যে, এসব দাবি মিথ্যা ও অপপ্রচারমূলক। যেমন, ফেসবুক ও টিকটকে দাবি করা হয়েছিল ফিলিস্তিনের উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছে ইরানের সেনাবাহিনী। কিন্তু যাচাই প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, ভিডিওটি পুরোনো ও ভিন্ন ঘটনার। মূলত ইউক্রেনের সেনাবাহিনী কর্তৃক ক্ষেপণাস্ত্র হামলার একটি ভিডিও এটি। এর বাইরেও বিভিন্ন সময়ে ফিলিস্তিন-ইসরায়েল দ্বন্দ্ব নিয়ে ছড়াতে দেখা গেছে বিভিন্ন অপতথ্য।

আরো কিছু লেখা