তামারা ইয়াসমীন তমা

রিসার্চার, ডিসমিসল্যাব
বেক্সিমকোর জরিপে অংশ নিয়ে টাকা জেতার অফারটি ভুয়া
This article is more than 1 year old

বেক্সিমকোর জরিপে অংশ নিয়ে টাকা জেতার অফারটি ভুয়া

তামারা ইয়াসমীন তমা
রিসার্চার, ডিসমিসল্যাব

বেক্সিমকোর দুই সহযোগী কোম্পানি বেক্সিমকো ফার্মা ও বেক্সিমকো হেলথের লোগো ও ছবি সম্বলিত একটি ভুয়া ওয়েবসাইটের লিংক সম্প্রতি মেসেজিং প্ল্যাটফর্মে ছড়িয়ে পড়েছে। লিংকের দাবি অনুযায়ী, রমজান উপলক্ষে সরকারি ভর্তুকি হিসেবে ৩০ হাজার টাকা জিতে নেওয়ার সুযোগ দিচ্ছে বেক্সিমকো হেলথ। ডিসমিসল্যাবের যাচাইয়ে দেখা গেছে, বেক্সিমকো ফার্মা কিংবা বেক্সিমকো হেলথ কোনো প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকেই এমন কোনো অফার দেওয়া হয়নি।

ছড়িয়ে পড়া লিংকটিতে ক্লিক করলে সেটি আরেকটি লিংকে নিয়ে যায়। লিংকটি পর্যবেক্ষণে দেখা যায়, ওয়েবসাইটের উপরে বাম দিকে বেক্সিমকো ফার্মার লোগোর একটি ছবি রয়েছে। ভেতরে লেখা, কয়েকটি প্রশ্নের উত্তর দিলেই থাকছে ৩০ হাজার টাকা জিতে নেওয়ার সুযোগ। প্রশ্নগুলোর ধরন দেখলে মনে হবে কোনো জরিপের প্রশ্নমালা।

এছাড়া লিংকটিতে বেক্সিমকো হেলথের লোগো সম্বলিত একটি ভবনের সামনে কয়েকজন কর্মকর্তার ছবিও ব্যবহৃত হয়েছে। ছবিটি রিভার্স ইমেজ সার্চ করে দেখা যায়, এটি ২০২১ সালের নভেম্বরে জাপান-ভিত্তিক কোম্পানি কেটু লজিস্টিকস বাংলাদেশ লিমিটেডের সঙ্গে বেক্সিমকো হেলথের স্বাক্ষরিত একটি চুক্তি পরবর্তী সৌজন্য ছবি। ছবিটি ভুয়া কিংবা সম্পাদিত না হলেও এই ভুয়া ওয়েবসাইট ব্যবহারের কারণে বিভ্রান্তির সৃষ্টি হতে পারে। ছবি, লোগো ও প্রশ্নের ধরন দেখে অসংখ্য মানুষ লিংকটি ফরোয়ার্ড করেছেন।

প্রশ্নের উত্তর দিলে তিনবার সুযোগ দেওয়া হয় পুরস্কার জিতে নেওয়ার। এরপর দেখানো হয় আপনি ৩০ হাজার টাকা জিতে নিয়েছেন। তবে পুরস্কারের টাকা নিতে হলে অন্তত ৫টি গ্রুপ কিংবা ২০ জন বন্ধুর সঙ্গে লিংকটি শেয়ার করতে বলা হয়।

বেক্সিমকো ফার্মাবেক্সিমকো হেলথ-এর ওয়েবসাইট বা তাদের নিজস্ব অফিসিয়াল ফেসবুক পেইজ (বেক্সিমকো ফার্মা, বেক্সিমকো হেলথ) কোথাও এ ধরনের কোনো ঘোষণা পাওয়া যায় না।

এ বিষয়ে বেক্সিমকো হেলথের সিনিয়র ম্যানেজার (সেলস অ্যান্ড মার্কেটিং) মো. তোজ্জামেল হোসেনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, “এগুলো স্প্যাম। বেক্সিমকো এমন কোনো প্রচারণা চালায়নি”।

দেখা গেছে, বিভিন্ন দিবসে এ ধরনের টাকা জেতার অফার লিংক ছড়িয়ে পড়ছে মেসেজিং অ্যাপগুলোতে। এর আগে নারী দিবস, মাতৃভাষা দিবস, বিজয় দিবস উপলক্ষ্যেও এ ধরনের ভুয়া বার্তা ছড়াতে দেখা গেছে, যা ইতিমধ্যে যাচাইও করা হয়েছে।

আরো কিছু লেখা