মিনহাজ আমান

রিসার্চ-লিড, ডিসমিসল্যাব
সংবাদমাধ্যমের লোগো ব্যবহার করে অবৈধ বেটিং সাইটের প্রচার
This article is more than 12 months old
Betting-Feature2

সংবাদমাধ্যমের লোগো ব্যবহার করে অবৈধ বেটিং সাইটের প্রচার

মিনহাজ আমান
রিসার্চ-লিড, ডিসমিসল্যাব

ফেসবুকে সংবাদমাধ্যমের লোগো ব্যবহার করে সম্পাদনা করা একটি ভিডিও দিয়ে অবৈধ বেটিং ওয়েবসাইটের প্রচার চালানো হচ্ছে।

বেসরকারি টিভি চ্যানেল ২৪ এর লোগো সম্বলিত এমন একটি প্রচারণামূলক ভিডিও লাভইউফরেভার নামের পেজে পোস্ট করা হয়েছে।

ভিডিওটিতে একজন উপস্থাপককে একটি অ্যাপ ডাউনলোড করে টাকা আয় করার খবর পাঠ করতে দেখা যায়।

কিন্তু ডিসমিসল্যাব যাচাই করে দেখেছে, চ্যানেল ২৪ এর সংবাদ প্রতিবেদন আকারে উপস্থাপন করা ভিডিওটি বানানো হয়েছে সম্পাদনা করে। একাধিক বেটিং বা জুয়ার ওয়েবসাইটে নিবন্ধিত হওয়ার আহবান জানানো প্রতিবেদনটি বাস্তবে চ্যানেল ২৪ এর নয়।

লাভইউফরেভার নামের ফেসবুক পেজ থেকে ২৪ সেকেন্ডের ভিডিওটি ২০২২ সালের আগস্ট মাসে পোস্ট করা হয়।

ভিডিওতে ভয়েস ওভারে বলতে শোনা যায়, “বখতিয়ার মঞ্জিলের অ্যাপটিতে একটি বিশাল জ্যাকপট আঘাত করেছে। তিনি ফেসবুক থেকে একটি মোবাইল অ্যাপলিকেশন ইনস্টল করেছেন, নিবন্ধিত হয়েছে এবং পরের দিনই তিনি ভাগ্যবান। আপনি পরেরবার ভাগ্যবান হতে পারেন। জিতে নেওয়া টাকা অবিলম্বে কার্ডে জমা হয়। অ্যাপটি এখনো ডাউনলোডের জন্য উপলব্ধ। যোগ দিন এবং আপনিও সফল হবেন।”

ভিডিওটির উল্লেখযোগ্য অংশে একজন নারী ও পুরুষকে দেখা যাচ্ছে। ভিডিওটির ক্যাপশনে ৫টি স্টার দেওয়া ছাড়া কিছুই উল্লেখ নেই এবং এটি এরই মধ্যে প্রায় ২৩ হাজার বার দেখা হয়েছে।

ভিডিওটির নিচে অস্পষ্ট অক্ষরে লেখা আছে, “একটি মোবাইল অ্যাপে জ্যাকপট হিট করুন। অ্যাপটি ইন্সটল করুন এবং উপার্জন শুরু করুন”।

ফুটেজের শেষ দিকে ‘মোস্টবেট’ নামে একটি লোগো দেখা যাচ্ছে, যা মূলত একটি অনলাইন বেটিং প্ল্যাটফর্ম। এছাড়া ভিডিওটির কমেন্টে তিন পাত্তি সার্কেল নামে আরেকটি অ্যাপের লিংক দেওয়া হয়েছে। 

ডিসমিসল্যাবের যাচাইয়ে দেখা গেছে, ২১ সেকেন্ডের এই ভিডিওটি সম্পাদিত। মূলত চ্যানেল ২৪-এর একটি খবরের সঙ্গে ভিন্ন একটি ভিডিও যুক্ত করে আলাদা ভয়েস ওভার যুক্ত করে ভিডিওটি তৈরি করা হয়েছে।

ভিডিওটির ৫ সেকেন্ড থেকে ৮ সেকেন্ড এবং ১৬ সেকেন্ড থেকে শেষ পর্যন্ত সাদা পোশাক পরিহিত এক ব্যক্তি এবং একজন নারীকে দেখা যাচ্ছে যেটি ২০২১ সালে ভিন্ন একটি ইউটিউব চ্যানেলে আপলোড করা ভিডিও থেকে নেওয়া।

৭ মিনিটের আসল এই ভিডিওটি টপনচ ইডিওটস নামের একটি ভেরিফায়েড ইউটিউব চ্যানেলে পাওয়া গেছে যা আপলোড করা হয়েছিল ২০২১ সালের মার্চ মাসে। একই ভিডিওর সংক্ষিপ্ত সংস্করণ টপনচ ইডিওটস-এর ফেসবুক পেজেও আপলোড করা হয়েছে। এই ইউটিউব চ্যানেলটি মূলত প্র্যাংকসহ বিনোদনমূলক ভিডিও তৈরি করে।

সম্পাদিত এই ভিডিওটির শেষাংশে ইংরেজিতে লেখা ‘মোস্টবেট’ সার্চ করে এ সংক্রান্ত একাধিক ওয়েবসাইট পাওয়া গেছে। তার মধ্যে মোস্টবেট ডটকমে গেলে বলা হচ্ছে, এটি রাশিয়ার বাজারে ২০০৯ সালে প্রতিষ্ঠিত এবং অন্তত ৯৩টি দেশে পরিচালিত এই প্ল্যাটফর্মটি মূলত খেলাধুলা ভিত্তিক বেটিংয়ের।

ওয়েবসাইটে যুক্ত ফেসবুক পেজে গেলে দেখা যায় সেটি ‘মোস্টবেট বাংলাদেশ’ নামে পরিচালিত হচ্ছে এবং বলা হচ্ছে এটি সাইপ্রাস থেকে নিবন্ধিত।

কিন্তু সেটির পেজ ট্রান্সপারেন্সিতে গেলে দেখা যাচ্ছে ২০২০ সালের আগস্ট মাসে খোলা এই পেজটি বাংলাদেশ থেকেই পরিচালিত হচ্ছে। গুগল স্টোরে তাদের অ্যাপ ডাউনলোড করা না গেলেও ওয়েবসাইটে উল্লেখ করা লিংক থেকে মোস্টবেটের অ্যান্ড্রয়েড ফাইল এবং অ্যাপল আইওএস ভার্সন ডাউনলোড করা যাচ্ছে।

সার্চ করে মোস্টবেট প্ল্যাটফর্মটি সম্পর্কে বাংলাদেশের গণমাধ্যমে প্রকাশিত একাধিক সংবাদ প্রতিবেদন পাওয়া গেছে। ২০২১ সালে মোস্টবেট সংক্রান্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করেছিল ইন্ডিপেন্ডেন্ট টিভি। সেখানে বলা হয়, রাশিয়া থেকে ওয়েবসাইটের হোস্টিং ডোমেইন কেনা হলেও বেটিং প্লাটফর্মটি পরিচালিত হয় বাংলাদেশ থেকে। এ চক্রের একাধিক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তারও করা হয়েছে বলে জানায় তারা।

একইভাবে ২০২২ সালে প্রকাশিত ঢাকা পোষ্টের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, জুয়ার সাইট মোস্টবেট-এর স‌ঙ্গে জ‌ড়িত বাংলাদেশি কয়েকজনের মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাকাউন্টের লেনদেন পর্যালোচনা করেছে বিএফআইইউ (ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট)। সেখানে ২০২২ সালের জানুয়ারি থেকে ৬ মাসের লেনদেনে দেখা যায়, প্রতিটি অ্যাকাউন্টে মাসে গড়ে ৫০ লাখ টাকা নেওয়া হয়েছে। সে অনুযায়ী নমুনায় থাকা ৫টি নম্বরে ৬ মাসে নেওয়া হয়েছে প্রায় ১৫ কোটি টাকা।

আরো কিছু লেখা